১০:৫৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

যশোরের শার্শায় জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে বসতবাড়ি ভাংচুর ও জমি জবরদখল করার অভিযোগ

যশোরের শার্শায় জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে বসতবাড়ি ভাংচুর ও জমি জবরদখল করার অভিযোগ উঠেছে একই গ্রামের নুরুল ইসলাম ও রফিকুল ইসলাম নামে দুই সহদরের বিরুদ্ধে।

এ ঘটনায় আসামীদের বিরুদ্ধে শার্শা থানায় একটি এজাহার দায়ের করবেন বলে জানান ভূক্তভোগীরা। নুরুল ইসলাম ও রফিকুল ইসলাম উপজেলার নারায়ণপুর গ্রামের মৃত আয়ুব আলীর ছেলে।

আসামীগণের ভাইপো বাদী আব্দুল আলিম জানান, বিবাদীগণ দীর্ঘদিন ধরে সাড়ে ৭ শতাংশ মোট জমির ৫ শতাংশ জমি ফাঁকি দিয়ে ভোগদখল করে আসছিলো। বিষয়টি জানাজানি হলে একাধিকবার স্থানীয় ভাবে সমাধানের চেষ্টা করেও তারা কোন আপস মিমাংসা না করে অন্যের জমি জবরদখল করে ভোগ করতে থাকে।

পরবর্তীতে উক্ত বিষয় নিয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যান, সাংবাদিক ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত হয়ে আসামিগণের কাছ থেকে জমির প্রকৃত মালিকে জমি বুঝিয়ে দিলে বাদীপক্ষ উক্ত জমিতে গত ২০ মার্চ তারকাঁটার বেড়া দিয়ে ও টিন শেডের ঘর তৈরি করে বসবাস শুরু করেন।

এ ঘটনায় আসামীগণসহ আরো ৪/৫ জনের একটি দল লোভ ও হিংসার বসবর্তী হয়ে গত ২৭ মার্চ রাতে সেহরির আগ মুহূর্তে ওই বসতবাড়িতে বুলডোজারের মাধ্যমে হামলা করে ভাংচুর করে এবং দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র হাতে বাদীপক্ষকে মেরে ফেলার জন্য হুমকি ধামকি দেয়।

এসময় আসামিগণ বসতবাড়ীর সবকিছু নষ্ট করে ঘরের মধ্যে থাকা নগদ অর্থ ও বিভিন্ন মালামাল লুট করে পালিয়ে যায়। ২৮ মার্চ সকালে উক্ত ঘটনাটি স্থানীয় চেয়ারম্যান, ইউপি সদস্য, সাংবাদিক ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে অবহিত করলে সকলের পরামর্শে শার্শা থানায় একটি এজাহার দায়ের করা হবে জানান ভুক্তভোগী পরিবার।
আসামীদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন তারা।

 

ট্যাগস :

যশোরের শার্শায় জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে বসতবাড়ি ভাংচুর ও জমি জবরদখল করার অভিযোগ

প্রকাশ : ১০:০৩:৪০ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৯ মার্চ ২০২৩

যশোরের শার্শায় জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে বসতবাড়ি ভাংচুর ও জমি জবরদখল করার অভিযোগ উঠেছে একই গ্রামের নুরুল ইসলাম ও রফিকুল ইসলাম নামে দুই সহদরের বিরুদ্ধে।

এ ঘটনায় আসামীদের বিরুদ্ধে শার্শা থানায় একটি এজাহার দায়ের করবেন বলে জানান ভূক্তভোগীরা। নুরুল ইসলাম ও রফিকুল ইসলাম উপজেলার নারায়ণপুর গ্রামের মৃত আয়ুব আলীর ছেলে।

আসামীগণের ভাইপো বাদী আব্দুল আলিম জানান, বিবাদীগণ দীর্ঘদিন ধরে সাড়ে ৭ শতাংশ মোট জমির ৫ শতাংশ জমি ফাঁকি দিয়ে ভোগদখল করে আসছিলো। বিষয়টি জানাজানি হলে একাধিকবার স্থানীয় ভাবে সমাধানের চেষ্টা করেও তারা কোন আপস মিমাংসা না করে অন্যের জমি জবরদখল করে ভোগ করতে থাকে।

পরবর্তীতে উক্ত বিষয় নিয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যান, সাংবাদিক ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত হয়ে আসামিগণের কাছ থেকে জমির প্রকৃত মালিকে জমি বুঝিয়ে দিলে বাদীপক্ষ উক্ত জমিতে গত ২০ মার্চ তারকাঁটার বেড়া দিয়ে ও টিন শেডের ঘর তৈরি করে বসবাস শুরু করেন।

এ ঘটনায় আসামীগণসহ আরো ৪/৫ জনের একটি দল লোভ ও হিংসার বসবর্তী হয়ে গত ২৭ মার্চ রাতে সেহরির আগ মুহূর্তে ওই বসতবাড়িতে বুলডোজারের মাধ্যমে হামলা করে ভাংচুর করে এবং দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র হাতে বাদীপক্ষকে মেরে ফেলার জন্য হুমকি ধামকি দেয়।

এসময় আসামিগণ বসতবাড়ীর সবকিছু নষ্ট করে ঘরের মধ্যে থাকা নগদ অর্থ ও বিভিন্ন মালামাল লুট করে পালিয়ে যায়। ২৮ মার্চ সকালে উক্ত ঘটনাটি স্থানীয় চেয়ারম্যান, ইউপি সদস্য, সাংবাদিক ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে অবহিত করলে সকলের পরামর্শে শার্শা থানায় একটি এজাহার দায়ের করা হবে জানান ভুক্তভোগী পরিবার।
আসামীদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন তারা।