ঢাকা ০৪:৫৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চুয়াডাঙ্গায় জন্ম নেয়া চার জমজ কন্যার পরিবারের পাশে সাহিদুজ্জামান টরিক

জমজ চার কন্যা শিশুর পরিবারের পাশে দাঁড়ালেন সিঙ্গাপুরস্থ বাংলাদেশ বিজনেস অব চেম্বার (বিডিচ্যাম)-এর প্রেসিডেন্ট, সাহিদ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক, এনআরবি ওয়ার্ল্ডের প্রেসিডেন্ট ও দৈনিক সময়ের সমীকরণের প্রধান পৃষ্ঠপোষক আলহাজ্ব সাহিদুজ্জামান টরিক। প্রবাসে থাকলেও তাঁর নজর এড়ায়নি চুয়াডাঙ্গায় জন্ম নেওয়া চার কন্যাশিশুর বিষয়টি। পরিবারটির জন্য আর্থিক সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন তিনি।
জানা গেছে, গত মঙ্গলবার চুয়াডাঙ্গার একটি বেসরকারি ক্লিনিকে দামুড়হুদা উপজেলার বিষ্ণপুর গ্রামের দিনমজুর মাহাবুবের স্ত্রী চার কন্যা সন্তানের জন্ম দেন। চার কন্যা সন্তান ও দিনমজুর পিতার পারিবারিক অবস্থার বিষয়টি দৈনিক সময়ের সমীকরণ পত্রিকায় প্রিন্ট ও অনলাইন ভার্সনে প্রকাশিত হলে বিষয়টি নজরে পড়ে সাহিদুজ্জামান টরিকের। পরিবারটির পাশে থাকার প্রত্যায় জানিয়ে তিনি বাড়িয়ে দেন সহযোগিতার হাত। গতকাল শনিবার বিকেল চারটার দিকে সময়ের সমীকরণ পরিবারের সদস্যরা জমজ চার কন্যা শিশুর বাড়িতে গিয়ে তাঁদের দিনমজুর পিতা মাহাবুবের হাতে সাহিদুজ্জামান টরিকের পক্ষে নগদ ১০ হাজার টাকা তুলে দেন। ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে চার জমজ কন্যা শিশুর সার্বিক খোঁজখবর নেন আলহাজ্ব সাহিদুজ্জামান টরিক। তিনি জমজ চার কন্যার পিতা মাহাবুবের সঙ্গেও কথা বলেন। এসময় দৈনিক সময়ের সমীকরণ পত্রিকার নিজস্ব প্রতিবেদক মেহেরাব্বিন সানভী, রুদ্র রাসেল, দামুড়হুদা প্রতিনিধি মোজাম্মেল শিশির ও হাসপাতাল প্রতিবেদক সাকিব আল হাসান উপস্থিত ছিলেন।
জমজ চার কন্যার পিতা মাহাবুব বলেন, ‘আমার ঘরে চার কন্যা সন্তান জন্ম নেওয়ায় আমি সবথেকে বেশি খুশি হয়েছি। আবার আমিই সবথেকে বেশি দুশ্চিন্তায় ছিলাম মেয়েদের ভরণপোষণ নিয়ে। চুয়াডাঙ্গার ডিসি আমার চার কন্যাকে দেখেতে আসেন, তিনিই তাঁদের নাম দিয়েছেন। আজ সিঙ্গাপুরের ব্যবসায়ী সাহিদুজ্জামান টরিক সাহেব আমার পরিবারের খোঁজ নিয়েছেন। তার পক্ষ থেকে আমার বাড়িতে মানুষ পাঠিয়েছেন ও তাদের মাধ্যমে আমার সন্তানদের জন্য ১০ হাজার টাকাও দিয়েছেন। তিনি ভিডিও কলে কন্যাদের দেখেছেন, আমার সঙ্গে কথা বলেছেন এবং আমার সন্তানদের খোঁজ রাখবেন বলেও জানিয়েছেন। টরিক সাহেবের আন্তরিকতার জন্য আমি তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞ থাকব। আমার সন্তানদের আল্লাহ্ সুস্থ রাখুক এখন এটাই আমার চাওয়া। আমি সকলের নিকট দোয়া চাই যেন বাঁচ্চাগুলোকে লেখাপড়া শিখিয়ে মানুষের মতো মানুষ গড়তে পারি।
উল্লেখ্য, দামুড়হুদা উপজেলার জুড়ানপুর ইউনিয়নের বিষ্ণপুর গ্রামের মাহাবুবের স্ত্রী কল্পনা খাতুন গত ৯ মে সন্ধ্যায় চুয়াডাঙ্গা শহরের একটি বেসরকারি ক্লিনিকে একসঙ্গে চার শিশু কন্যার জন্মদেন। এক সঙ্গে চার কন্যার জন্ম হওয়ায় মাহাবুব আনন্দিত হলেও কন্যা সন্তানদের ভরণপোষণ নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েন। চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন, চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আমিনুল ইসলাম খানসহ অনেকেই পরিবারটিকে সহযোগিতাসহ পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন।

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে যুদ্ধ বিরতি চুক্তিতে বাধা দেয়ার অভিযোগ

চুয়াডাঙ্গায় জন্ম নেয়া চার জমজ কন্যার পরিবারের পাশে সাহিদুজ্জামান টরিক

আপডেট সময় : ০৬:২৫:২১ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ মে ২০২৩

জমজ চার কন্যা শিশুর পরিবারের পাশে দাঁড়ালেন সিঙ্গাপুরস্থ বাংলাদেশ বিজনেস অব চেম্বার (বিডিচ্যাম)-এর প্রেসিডেন্ট, সাহিদ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক, এনআরবি ওয়ার্ল্ডের প্রেসিডেন্ট ও দৈনিক সময়ের সমীকরণের প্রধান পৃষ্ঠপোষক আলহাজ্ব সাহিদুজ্জামান টরিক। প্রবাসে থাকলেও তাঁর নজর এড়ায়নি চুয়াডাঙ্গায় জন্ম নেওয়া চার কন্যাশিশুর বিষয়টি। পরিবারটির জন্য আর্থিক সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন তিনি।
জানা গেছে, গত মঙ্গলবার চুয়াডাঙ্গার একটি বেসরকারি ক্লিনিকে দামুড়হুদা উপজেলার বিষ্ণপুর গ্রামের দিনমজুর মাহাবুবের স্ত্রী চার কন্যা সন্তানের জন্ম দেন। চার কন্যা সন্তান ও দিনমজুর পিতার পারিবারিক অবস্থার বিষয়টি দৈনিক সময়ের সমীকরণ পত্রিকায় প্রিন্ট ও অনলাইন ভার্সনে প্রকাশিত হলে বিষয়টি নজরে পড়ে সাহিদুজ্জামান টরিকের। পরিবারটির পাশে থাকার প্রত্যায় জানিয়ে তিনি বাড়িয়ে দেন সহযোগিতার হাত। গতকাল শনিবার বিকেল চারটার দিকে সময়ের সমীকরণ পরিবারের সদস্যরা জমজ চার কন্যা শিশুর বাড়িতে গিয়ে তাঁদের দিনমজুর পিতা মাহাবুবের হাতে সাহিদুজ্জামান টরিকের পক্ষে নগদ ১০ হাজার টাকা তুলে দেন। ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে চার জমজ কন্যা শিশুর সার্বিক খোঁজখবর নেন আলহাজ্ব সাহিদুজ্জামান টরিক। তিনি জমজ চার কন্যার পিতা মাহাবুবের সঙ্গেও কথা বলেন। এসময় দৈনিক সময়ের সমীকরণ পত্রিকার নিজস্ব প্রতিবেদক মেহেরাব্বিন সানভী, রুদ্র রাসেল, দামুড়হুদা প্রতিনিধি মোজাম্মেল শিশির ও হাসপাতাল প্রতিবেদক সাকিব আল হাসান উপস্থিত ছিলেন।
জমজ চার কন্যার পিতা মাহাবুব বলেন, ‘আমার ঘরে চার কন্যা সন্তান জন্ম নেওয়ায় আমি সবথেকে বেশি খুশি হয়েছি। আবার আমিই সবথেকে বেশি দুশ্চিন্তায় ছিলাম মেয়েদের ভরণপোষণ নিয়ে। চুয়াডাঙ্গার ডিসি আমার চার কন্যাকে দেখেতে আসেন, তিনিই তাঁদের নাম দিয়েছেন। আজ সিঙ্গাপুরের ব্যবসায়ী সাহিদুজ্জামান টরিক সাহেব আমার পরিবারের খোঁজ নিয়েছেন। তার পক্ষ থেকে আমার বাড়িতে মানুষ পাঠিয়েছেন ও তাদের মাধ্যমে আমার সন্তানদের জন্য ১০ হাজার টাকাও দিয়েছেন। তিনি ভিডিও কলে কন্যাদের দেখেছেন, আমার সঙ্গে কথা বলেছেন এবং আমার সন্তানদের খোঁজ রাখবেন বলেও জানিয়েছেন। টরিক সাহেবের আন্তরিকতার জন্য আমি তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞ থাকব। আমার সন্তানদের আল্লাহ্ সুস্থ রাখুক এখন এটাই আমার চাওয়া। আমি সকলের নিকট দোয়া চাই যেন বাঁচ্চাগুলোকে লেখাপড়া শিখিয়ে মানুষের মতো মানুষ গড়তে পারি।
উল্লেখ্য, দামুড়হুদা উপজেলার জুড়ানপুর ইউনিয়নের বিষ্ণপুর গ্রামের মাহাবুবের স্ত্রী কল্পনা খাতুন গত ৯ মে সন্ধ্যায় চুয়াডাঙ্গা শহরের একটি বেসরকারি ক্লিনিকে একসঙ্গে চার শিশু কন্যার জন্মদেন। এক সঙ্গে চার কন্যার জন্ম হওয়ায় মাহাবুব আনন্দিত হলেও কন্যা সন্তানদের ভরণপোষণ নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েন। চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন, চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আমিনুল ইসলাম খানসহ অনেকেই পরিবারটিকে সহযোগিতাসহ পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন।