১১:৩৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জুমার দিনের ফজিলত

জুমার দিন সপ্তাহের সেরা দিন। মুসলিম উম্মাহর ইবাদত-বন্দেগির নির্ধারিত দিন। দিনটি আল্লাহর কাছে অতি মর্যাদাসম্পন্ন। দিনটিকে সদরে গ্রহণ করেছেন মুমিন মুসলমান। মুসলমানদের কাছে এ দিনের ফজিলত অনেক বেশি। জুমার দিনের

সুন্নত পড়ার সময় জুমার খুতবা শুরু হলে যা করবেন

জুমার পূর্বের চার রাকাত সুন্নত পড়া অবস্থায় অনেক সময় খতিব সাহেব খুতবা শুরু করে দেন। এক আলেম থেকে শুনেছি খুতবার সময় নামাজ পড়া নিষেধ। জানার বিষয় হলো, এমন পরিস্থিতিতে আমার

কিয়ামতের দিন আরশের ছায়ায় জায়গা পাবেন যারা

মৃত্যুর পর সবার বিচার করবেন সৃষ্টিকর্তা মহান আল্লাহ তায়ালা। দুনিয়ায় করে যাওয়া ভালো কাজের পুরস্কার ও মন্দ কাজের পরিনাম মানুষকে ভোগ করতে হবে। দুনিয়ার ছোট্ট একটি ভালো কাজের ফল সেদিন

অনুমতি ছাড়া কারও ঘরে প্রবেশ, ইসলাম যা বলে

মানুষের সামগ্রিক কল্যাণ ও মুক্তির জন্য ইসলাম আল্লাহ প্রদত্ত একটি পূর্ণাঙ্গ জীবন বিধান। জীবন ও জগতের খুঁটিনাটি থেকে বৃহৎ- সব বিষয়ের যাবতীয় নিয়মাবলি ও দিকনির্দেশনা এবং সুষ্ঠু সমাধান পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে দিয়েছে

জামাতে নামাজ পড়া নিয়ে যা বলেছেন মহানবী (সা.)

বিশ্বনবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) জামাতে নামাজ পড়ার ব্যাপারে অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়েছেন। এ বিষয়ে বেশ কিছু হাদিস রয়েছে। মালিক ইবনে হুওয়াইরিস (রা.) বর্ণিত হাদিসে এসেছে, রাসুল (সা.) বলেছেন, নামাজের সময় হলে