ঢাকা ০২:০৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রোজাদারদের অপেক্ষায় মেয়র স্বপন মিয়াজী

প্রতি রমজানের ন্যায় এবারও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মহিপালে রাস্তায় চলমান বিভিন্ন পরিবহন ও যাত্রীদের মাঝে বিনামূল্যে ইফতার বিতরণ করে যাচ্ছেন ফেনী পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ফেনী পৌর মেয়র নজরুল ইসলাম স্বপন মিয়াজী।
আসর নামাজের পর থেকে ইফতারের আগ মুহূর্ত পর্যন্ত কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবক নিয়ে তিনি বিগত কয়েক বছর ধরে এ মহৎ কাজটি করে যাচ্ছেন। মানসিক তৃপ্তি ও পূণ্যের আশায় তিনি পরিবহন শ্রমিক-যাত্রী ও অপরিচিতদের মাঝে ইফতার বিতরণে উৎসাহী বলে জানান তার স্বজন ও রাজনৈতিক সহকর্মীরা।
জানা যায়, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে দৈনিক হাজার হাজার পরিবহন চলাচল করে। আসরের নামাজের পর থেকে ইফতারের আগ মুহূর্ত পর্যন্ত পরিবহন শ্রমিক ও যাত্রীরা কোথায়-কিভাবে ইফতার করবেন তা নিয়ে এক ধরনের অনিশ্চয়তায় থাকতে হয়। অনেক সময় ইফতারের আগ মুহূর্তে সড়কের পাশে কোনো দোকানে গাড়ি থামালেও ইফতার পাওয়া যায় না। অথবা অতিরিক্ত দাম দিয়ে ইফতার কিনে খেতে হয়। অপরিচ্ছন্ন ও নোংরা পরিবেশে ব্যবসায়িক উদ্দেশে তৈরি করা এসব ইফতার খেয়ে কখনও কখনও রোজাদাররা নানা রকমের পেটের সমস্যায় ভোগেন। তাই অনেক সময় শ্রমিক ও যাত্রীরা ইফতার করার সুযোগ বঞ্চিত হন।
স্বপন মিয়াজীর রাজ নৈতিক শীর্ষ মাইন উদ্দিন সুমন ভূঞা বলেন, এসব বিষয় বিবেচনা করে আওয়ামী লীগ নেতা নজরুল ইসলাম স্বপন মিয়াজী বিগত কয়েক বছর ধরে মহাসড়কের চট্টগ্রাম মুখি লেইনে বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসম্মত ইফতার বিতরণ কার্যক্রম শুরু করেন। শুধু তাই নয়, মেয়র স্বপন মিয়াজীর ব্যক্তিগত তহবিলের এই ইফতার থেকে বাদ যাচ্ছে না ফুটপাতের ব্যবসায়ী, শ্রমিক, হতদরিদ্র ও বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ।
রিয়াদুল ইসলাম অনু নামের এক স্বেচ্ছাসেবক বলেন, প্রতিদিন প্রায় ৫ শতাধিক ব্যক্তির মাঝে স্বপন মিয়াজী বিনামূল্যে ইফতার বিতরণ করে যাচ্ছেন। ইফতারের প্যাকেটে বুট, পেয়াজু, বেগুনি, খেজুর, মুড়ি ও এক বোতল পানি দেওয়া হচ্ছে। এছাড়াও কখনও কখনও বিরিয়ানী, খেজুর, সালাদ ও পানির বোতল বিতরণ করা হয়।
মহাসড়কের মহিপাল থেকে মেয়রের ইফতার গ্রহণকারী ছিদ্দিকুর রহমান বলেন, এক সময়ে রাস্তার পাশ থেকে ইফতারি কিনে খেতে হতো। এতে করে কখনও দোকানে ইফতার পাওয়া যেত; আবার কখনও কখনও টাকা দিয়েও ইফতারি পাওয়া যেত না। রাস্তার ওপর ফুটপাতের এসব ইফতারি খেয়ে পেটের পীড়াসহ নানা সমস্যার সৃষ্টি হতো। গত কয়েক বছর ধরে ফেনী পৌরসভার মেয়র সাহেব আমাদের জন্য ইফতারির ব্যবস্থা করেছেন। এখন ইফতার নিয়ে অনিশ্চয়তায় থাকতে হয় না।
অভিব্যাক্তি প্রকাশ করতে গিয়ে ফেনী পৌরসভার মেয়র নজরুল ইসলাম স্বপন মিয়াজী বলেন, রোজাদারদের হাতে ইফতার তুলে দিতে পারাটা সৌভাগ্যের বিষয়। দ্বীন ধর্ম মতে এটি বিশেষ পূণ্যের কাজ। তাছাড়া মহাসড়কের যাত্রীরা অনেক সময় ইফতার করার জন্য সুযোগ পায় না। তাই আমার ব্যক্তিগত উদ্যোগে গত কয়েক বছর যাবত মহাসড়কের যাত্রী, পথচারী ও দু:স্থদের জন্য বিনামূল্যে ইফতার বিতরণের উদ্যোগ গ্রহণ করি। এছাড়াও ফেনী পৌরসভার প্রাঙ্গণে প্রতিবছরের ন্যায় এবারও দু:স্থদের জন্য ইফতারের ব্যবস্থা রেখেছি।
ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে যুদ্ধ বিরতি চুক্তিতে বাধা দেয়ার অভিযোগ

রোজাদারদের অপেক্ষায় মেয়র স্বপন মিয়াজী

আপডেট সময় : ০৩:২৫:২০ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৯ মার্চ ২০২৩
প্রতি রমজানের ন্যায় এবারও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মহিপালে রাস্তায় চলমান বিভিন্ন পরিবহন ও যাত্রীদের মাঝে বিনামূল্যে ইফতার বিতরণ করে যাচ্ছেন ফেনী পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ফেনী পৌর মেয়র নজরুল ইসলাম স্বপন মিয়াজী।
আসর নামাজের পর থেকে ইফতারের আগ মুহূর্ত পর্যন্ত কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবক নিয়ে তিনি বিগত কয়েক বছর ধরে এ মহৎ কাজটি করে যাচ্ছেন। মানসিক তৃপ্তি ও পূণ্যের আশায় তিনি পরিবহন শ্রমিক-যাত্রী ও অপরিচিতদের মাঝে ইফতার বিতরণে উৎসাহী বলে জানান তার স্বজন ও রাজনৈতিক সহকর্মীরা।
জানা যায়, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে দৈনিক হাজার হাজার পরিবহন চলাচল করে। আসরের নামাজের পর থেকে ইফতারের আগ মুহূর্ত পর্যন্ত পরিবহন শ্রমিক ও যাত্রীরা কোথায়-কিভাবে ইফতার করবেন তা নিয়ে এক ধরনের অনিশ্চয়তায় থাকতে হয়। অনেক সময় ইফতারের আগ মুহূর্তে সড়কের পাশে কোনো দোকানে গাড়ি থামালেও ইফতার পাওয়া যায় না। অথবা অতিরিক্ত দাম দিয়ে ইফতার কিনে খেতে হয়। অপরিচ্ছন্ন ও নোংরা পরিবেশে ব্যবসায়িক উদ্দেশে তৈরি করা এসব ইফতার খেয়ে কখনও কখনও রোজাদাররা নানা রকমের পেটের সমস্যায় ভোগেন। তাই অনেক সময় শ্রমিক ও যাত্রীরা ইফতার করার সুযোগ বঞ্চিত হন।
স্বপন মিয়াজীর রাজ নৈতিক শীর্ষ মাইন উদ্দিন সুমন ভূঞা বলেন, এসব বিষয় বিবেচনা করে আওয়ামী লীগ নেতা নজরুল ইসলাম স্বপন মিয়াজী বিগত কয়েক বছর ধরে মহাসড়কের চট্টগ্রাম মুখি লেইনে বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসম্মত ইফতার বিতরণ কার্যক্রম শুরু করেন। শুধু তাই নয়, মেয়র স্বপন মিয়াজীর ব্যক্তিগত তহবিলের এই ইফতার থেকে বাদ যাচ্ছে না ফুটপাতের ব্যবসায়ী, শ্রমিক, হতদরিদ্র ও বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ।
রিয়াদুল ইসলাম অনু নামের এক স্বেচ্ছাসেবক বলেন, প্রতিদিন প্রায় ৫ শতাধিক ব্যক্তির মাঝে স্বপন মিয়াজী বিনামূল্যে ইফতার বিতরণ করে যাচ্ছেন। ইফতারের প্যাকেটে বুট, পেয়াজু, বেগুনি, খেজুর, মুড়ি ও এক বোতল পানি দেওয়া হচ্ছে। এছাড়াও কখনও কখনও বিরিয়ানী, খেজুর, সালাদ ও পানির বোতল বিতরণ করা হয়।
মহাসড়কের মহিপাল থেকে মেয়রের ইফতার গ্রহণকারী ছিদ্দিকুর রহমান বলেন, এক সময়ে রাস্তার পাশ থেকে ইফতারি কিনে খেতে হতো। এতে করে কখনও দোকানে ইফতার পাওয়া যেত; আবার কখনও কখনও টাকা দিয়েও ইফতারি পাওয়া যেত না। রাস্তার ওপর ফুটপাতের এসব ইফতারি খেয়ে পেটের পীড়াসহ নানা সমস্যার সৃষ্টি হতো। গত কয়েক বছর ধরে ফেনী পৌরসভার মেয়র সাহেব আমাদের জন্য ইফতারির ব্যবস্থা করেছেন। এখন ইফতার নিয়ে অনিশ্চয়তায় থাকতে হয় না।
অভিব্যাক্তি প্রকাশ করতে গিয়ে ফেনী পৌরসভার মেয়র নজরুল ইসলাম স্বপন মিয়াজী বলেন, রোজাদারদের হাতে ইফতার তুলে দিতে পারাটা সৌভাগ্যের বিষয়। দ্বীন ধর্ম মতে এটি বিশেষ পূণ্যের কাজ। তাছাড়া মহাসড়কের যাত্রীরা অনেক সময় ইফতার করার জন্য সুযোগ পায় না। তাই আমার ব্যক্তিগত উদ্যোগে গত কয়েক বছর যাবত মহাসড়কের যাত্রী, পথচারী ও দু:স্থদের জন্য বিনামূল্যে ইফতার বিতরণের উদ্যোগ গ্রহণ করি। এছাড়াও ফেনী পৌরসভার প্রাঙ্গণে প্রতিবছরের ন্যায় এবারও দু:স্থদের জন্য ইফতারের ব্যবস্থা রেখেছি।