ঢাকা ০৯:১৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দেশের ২৫ অঞ্চলে বইছে মৃদু দাবদাহ

গত মাসে দেশের দুই একটি অঞ্চলে মৃদু দাবদাহ বইলেও চলতি মাস থেকে বিভিন্ন অঞ্চলে এই প্রবণতা বেড়েছে। আবহাওয়া অধিদপ্তরের হিসেবে শুক্রবার (০৭ এপ্রিল) দেশের ১৯টি অঞ্চলের ওপর দিয়ে মৃদু দাবদাহ বয়ে গেছে।
আবহাওয়াবিদরা জানান, মৃদু দাবদাহ বয়ে যাওয়া অঞ্চলের সংখ্যা ২০টিরও বেশি। সব অঞ্চলে আবহাওয়া দপ্তর না থাকায় সব তথ্য পাওয়া যায় না। তবে আগামী সপ্তাহে মৃদু দাবদাহ বয়ে যাওয়া অঞ্চলের সংখ্যা ২৪ ছাড়িয়ে যেতে পারে।
জানা গেছে, মার্চ-এপ্রিল-মে এই তিন মাস কালবৈশাখীর মৌসুম। মার্চের ১৪ তারিখের পর প্রতিদিনই কিছু না কিছু বৃষ্টিপাত হয়েছে। এ কারণে তাপমাত্রা বেশি বাড়েনি। মাঝে মধ্যে দু’এক জায়গায় মৃদু দাবদাহ ছিল। তবে এপ্রিল বাংলাদেশের জন্য সবচেয়ে উষ্ণতম মাস। এই সময়ে বৃষ্টি হলে কালবৈশাখী ঝড় হয়। বৃষ্টিপাত না হলে তাপমাত্রা বাড়তে থাকে।
শুক্রবার খুলনা বিভাগের ৬টি অঞ্চল, ঢাকা, টাঙ্গাইল, ফরিদপুর, রাজশাহী, পাবনা, বগুড়া, সন্দ্বীপ, রাঙ্গামাটি, ফেনী, বান্দরবান, পটুয়াখালী, খেপুপাড়া ও ভোলা অঞ্চরের ওপর দিয়ে মৃদু দাবদাহ বয়ে গেছে। এ সময় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল চূয়াডাঙ্গায় ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা এ বছরেরও সর্বোচ্চ তাপমাত্রা।
আবাহওয়াবিদ শাহীনুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এসব স্টেশনের বাইরে আরো ৪ থেকে ৫টি অঞ্চলে মৃদু দাবদাহ বয়ে গেছে। সেসব স্থানে স্টেশন না থাকায় তালিকায় উল্লেখ করা হয়নি। মৃদু দাবদাহ প্রবাহিত হওয়া অঞ্চলগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো— ঢাকার নারায়ণগঞ্জ এবং চট্টগ্রামের আমবাগান।
আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, শনিবার সারা দেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে। সোমবার পর্যন্ত আবহাওয়ার সামান্য পরিবর্তন হতে পারে। আগামী শুক্রবার পর্যন্ত দিনের তাপমাত্রা আরো বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

আপলোডকারীর তথ্য

নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে যুদ্ধ বিরতি চুক্তিতে বাধা দেয়ার অভিযোগ

দেশের ২৫ অঞ্চলে বইছে মৃদু দাবদাহ

আপডেট সময় : ১০:০৫:১৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৭ এপ্রিল ২০২৩

গত মাসে দেশের দুই একটি অঞ্চলে মৃদু দাবদাহ বইলেও চলতি মাস থেকে বিভিন্ন অঞ্চলে এই প্রবণতা বেড়েছে। আবহাওয়া অধিদপ্তরের হিসেবে শুক্রবার (০৭ এপ্রিল) দেশের ১৯টি অঞ্চলের ওপর দিয়ে মৃদু দাবদাহ বয়ে গেছে।
আবহাওয়াবিদরা জানান, মৃদু দাবদাহ বয়ে যাওয়া অঞ্চলের সংখ্যা ২০টিরও বেশি। সব অঞ্চলে আবহাওয়া দপ্তর না থাকায় সব তথ্য পাওয়া যায় না। তবে আগামী সপ্তাহে মৃদু দাবদাহ বয়ে যাওয়া অঞ্চলের সংখ্যা ২৪ ছাড়িয়ে যেতে পারে।
জানা গেছে, মার্চ-এপ্রিল-মে এই তিন মাস কালবৈশাখীর মৌসুম। মার্চের ১৪ তারিখের পর প্রতিদিনই কিছু না কিছু বৃষ্টিপাত হয়েছে। এ কারণে তাপমাত্রা বেশি বাড়েনি। মাঝে মধ্যে দু’এক জায়গায় মৃদু দাবদাহ ছিল। তবে এপ্রিল বাংলাদেশের জন্য সবচেয়ে উষ্ণতম মাস। এই সময়ে বৃষ্টি হলে কালবৈশাখী ঝড় হয়। বৃষ্টিপাত না হলে তাপমাত্রা বাড়তে থাকে।
শুক্রবার খুলনা বিভাগের ৬টি অঞ্চল, ঢাকা, টাঙ্গাইল, ফরিদপুর, রাজশাহী, পাবনা, বগুড়া, সন্দ্বীপ, রাঙ্গামাটি, ফেনী, বান্দরবান, পটুয়াখালী, খেপুপাড়া ও ভোলা অঞ্চরের ওপর দিয়ে মৃদু দাবদাহ বয়ে গেছে। এ সময় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল চূয়াডাঙ্গায় ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা এ বছরেরও সর্বোচ্চ তাপমাত্রা।
আবাহওয়াবিদ শাহীনুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এসব স্টেশনের বাইরে আরো ৪ থেকে ৫টি অঞ্চলে মৃদু দাবদাহ বয়ে গেছে। সেসব স্থানে স্টেশন না থাকায় তালিকায় উল্লেখ করা হয়নি। মৃদু দাবদাহ প্রবাহিত হওয়া অঞ্চলগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো— ঢাকার নারায়ণগঞ্জ এবং চট্টগ্রামের আমবাগান।
আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, শনিবার সারা দেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে। সোমবার পর্যন্ত আবহাওয়ার সামান্য পরিবর্তন হতে পারে। আগামী শুক্রবার পর্যন্ত দিনের তাপমাত্রা আরো বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।