০৯:৪৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন-২০২৩

গাজীপুর সিটিতে নিশ্চিদ্র নিরাপত্তার মাধ্যমে সুষ্ঠু নির্বাচন নিশ্চিত করব : জিএমপি কমিশনার

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ (জিএমপি’র) কমিশনার মোল্যা নজরুল ইসলাম বলেন, নিশ্চিদ্র নিরাপত্তার মাধ্যমে গাজীপুরের সিটি করপোরেশনের নাগরিকদের জন্য সুষ্ঠু সুন্দর নির্বাচন উপহার দিতে পারি সেটা নিশ্চিত করব। নির্বাচন কেন্দ্রের আশেপাশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মোবাইল ডিউটি, স্ট্রাইকিং ফোর্স, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট থাকবে। এটা একটা সমন্বিত প্রয়াশ। আমরা সবাই মিলে একসাথে কাজ করব।
বুধবার (২৪ মে) বেলা সাগে ১১ টায় শহরের শহীদ বরকত স্টেডিয়ামে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দায়িত্বপ্রাপ্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিরাপত্তা ব্রিফিং অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্য তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি আরো বলেন, আমাদের মূল উদ্দেশ্য একটি সুষ্ঠু নির্বাচন করার জন্য। জনগন আসবে সুষ্ঠু, সুন্দরভাবে ভোট দিয়ে যাতে চলে যেতে পারে। আমরা দেখিয়ে দিতে চাই পুরো গাজীপুরসহ সারা বিশ্বের লোকজন তাকিয়ে আছে আমাদের দিকে। আমরা যাতে একটি ভালো সুষ্ঠু নির্বাচন দিতে পারি।
কোনো ধরনের চ্যালেঞ্জ আছে কিনা সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, আমরা বুধবার (২৪ মে) পর্যন্ত সুন্দরভাবে চলে আসছি। আগামীকাল নির্বাচনের দিন আপানারা যাতে সুন্দরভাবে জাতি ও দেশবাসীকে জানাতে পারেন সে বিষয়টি আমরা নিশ্চিত করবো। সিটি নির্বাচনে ৪৮০ টি কেন্দ্রের মধ্যে ৩৫১ টি কেন্দ্র গুরুত্বপূর্ণ। সুতরাং ৩৫১ টি কেন্দ্রে আমরা আলাদাভাবে গুরুত্ব দিব।
নির্বাচনের দায়িত্বপ্রাপ্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সকল সদস্যদের উদেশ্যে তিনি বলেন, প্রিজাইডিং অফিসাররের ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা আছে। যে কোনো বিষয়ে প্রিজাইডিং অফিসাররের যোগাযোগ করে আইনুনানুযায়ী ব্যবস্থা নিতে হবে। ভোট কেন্দ্র সঠিক ভাবে আছে কিনা। নিরাপত্তার কোনো ঝুঁকি আছে কিনা। কোথায় নিরাপত্তার ঝুঁকি। এসব বিষয়ে প্রিজাডিং অফিসারের সাথে যোগাযোগ করতে হবে। আমাদের পারস্পারিক যোগাযোগের মাধ্যমে আমরা যাতে নির্বাচনটা সঠিকভাবে করতে পারি।
যখন ভোট গ্রহণ শুরু হবে সবাই যাতে লাইনে দাঁড়াতে পারে, কেউ যেন পেশী শক্তি ব্যবহার করতে না পারে, কেউ যাতে ও মাস্তানি করতে না পারে এ বিষয়গুলো খেয়াল রাখতে হবে। ভোটার ও জনগণের সাথে সুন্দর ব্যবহার করতে হবে। আমাদের অনেক মা বোনেরা আছে, মা বোনদের সাথে সুন্দর ব্যবহার করতে হবে। অনেক ভোটার আসবে হয়তো চোখে দেখে না, পায়ে হাটতে পারেনা, যেভাবে সাহায্য করা যায় সাহায্য করবেন।
গাজীপুর সিটি নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ফরিদুল ইসলাম বলেন, জেলা প্রশাসনসহ সকল বাহিনী মিলে সিটি নির্বাচনকে সফল করার জন্য কাজ করছে। নির্বাচন কমিশনসহ সকলের একটাই চাওয়া সবাই যেন কমিশনকে সহেযোগীতা করে। সকলের সহযোগীতায় মাধ্যমে আমরা যেন গাজীপুরে মডেল নির্বাচন জাতিকে উপহার দিতে পারি। সিটি নির্বাচনে পাঁচ স্তরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন করে গাজীপুরকে নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেওয়া হয়েছে।
এজেন্ট বের করে দেওয়া হবে কিনা সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, আপনারা যেরকম আশঙ্কা করছেন সবগুলো বিষয়ে আমাদের নজরে আছে। এগুলো মাথায় রেখে আমরা সবকিছু পরিস্থিতি বিবেচনা করছি এবং সেই ভাবেই আমরা কাজ করছি। যদি এ ধরনের কোনো ঘটনা আমাদের নজরে আসে তাৎক্ষনিক আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ব্যবস্থা নিবে এবং ওই প্রার্থীর এজেন্টকে আমরা নিশ্চিত করবো সে কেন্দ্রে অবস্থান করার জন্য। আইনের মধ্যে থেকে যে সুযোগ সুবিধা পাওয়ার কথা আমরা তার জন্য সেগুলো নিশ্চিত করব। গাজীপুরের সকল ভোটরদেরকে উদাত্ত আহবান জানাব তারা যেন নির্ভিঘ্নে, নির্ভয়ে ভোট কেন্দ্রে এসে তা টছন্দ্রে প্রতীক এবং তার পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে পারে। তারা সুষ্ঠু সুন্দর পরিবেশে ভোট দিবে এবং তাদের ভোটাধিকার আমরা নিশ্চিত করার জন্য সর্বাত্নক কাজ করে যাচ্ছি।
গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ (জিএমপি’র) উপ-কমিশনার (এসবি) আবুল বাশার মো: আতিকুর রহমান জানান, ৫ হাজার পুলিশ সদস্য, প্রতি কেন্দ্রে ২ জন করে মোট ৯৬০ জন আনসার ব্যাটালিয়ান, প্রতি কেন্দ্রে ১০ জন করে ৪ হাজার ৮০০ গ্রাম পুলিশ, ৫৭ টি ওয়ার্ডে একজন নির্বাহী ম্যজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে আনসার সদস্য নিয়োজিত থাকবে।
এছাড়াও নগরীর ৫৭ টি ওয়ার্ডে ৫৭ জন ম্যাজিস্ট্রেট এবং ১৯ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, ২০ প্লাটুন বিজিবি, র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ান (র‌্যাব) সদস্য মোতায়েন থাকবে।
নিরাপত্তা ব্রিফিং অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন গাজীপুরের জেলা প্রশাসক আনিসুর রহমান, গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ’র (জিএমপি’র) অতিরিক্ত কমিশনার মোহাম্মদ ইলতুৎমিশ, অতিরিক্ত কমিশনার (প্রশাসন ও অর্থ) মো. জিয়াউল হক, বিজিব’র মেজর মো. ইকবাল, রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. ফরিদুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ (জিএমপি’র) গোয়েন্দা বিভাগের উপ-কমিশনার ইব্রাহিম হোসেন, গাজীপুর জেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা (ডিস্ট্রিক অ্যাডজুটেন্ট) আশরাফুল ইসলামসহ আইনশৃঙ্খলা বাহীনীর বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন-২০২৩

গাজীপুর সিটিতে নিশ্চিদ্র নিরাপত্তার মাধ্যমে সুষ্ঠু নির্বাচন নিশ্চিত করব : জিএমপি কমিশনার

প্রকাশ : ০২:৫৬:১৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৪ মে ২০২৩

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ (জিএমপি’র) কমিশনার মোল্যা নজরুল ইসলাম বলেন, নিশ্চিদ্র নিরাপত্তার মাধ্যমে গাজীপুরের সিটি করপোরেশনের নাগরিকদের জন্য সুষ্ঠু সুন্দর নির্বাচন উপহার দিতে পারি সেটা নিশ্চিত করব। নির্বাচন কেন্দ্রের আশেপাশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মোবাইল ডিউটি, স্ট্রাইকিং ফোর্স, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট থাকবে। এটা একটা সমন্বিত প্রয়াশ। আমরা সবাই মিলে একসাথে কাজ করব।
বুধবার (২৪ মে) বেলা সাগে ১১ টায় শহরের শহীদ বরকত স্টেডিয়ামে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দায়িত্বপ্রাপ্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিরাপত্তা ব্রিফিং অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্য তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি আরো বলেন, আমাদের মূল উদ্দেশ্য একটি সুষ্ঠু নির্বাচন করার জন্য। জনগন আসবে সুষ্ঠু, সুন্দরভাবে ভোট দিয়ে যাতে চলে যেতে পারে। আমরা দেখিয়ে দিতে চাই পুরো গাজীপুরসহ সারা বিশ্বের লোকজন তাকিয়ে আছে আমাদের দিকে। আমরা যাতে একটি ভালো সুষ্ঠু নির্বাচন দিতে পারি।
কোনো ধরনের চ্যালেঞ্জ আছে কিনা সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, আমরা বুধবার (২৪ মে) পর্যন্ত সুন্দরভাবে চলে আসছি। আগামীকাল নির্বাচনের দিন আপানারা যাতে সুন্দরভাবে জাতি ও দেশবাসীকে জানাতে পারেন সে বিষয়টি আমরা নিশ্চিত করবো। সিটি নির্বাচনে ৪৮০ টি কেন্দ্রের মধ্যে ৩৫১ টি কেন্দ্র গুরুত্বপূর্ণ। সুতরাং ৩৫১ টি কেন্দ্রে আমরা আলাদাভাবে গুরুত্ব দিব।
নির্বাচনের দায়িত্বপ্রাপ্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সকল সদস্যদের উদেশ্যে তিনি বলেন, প্রিজাইডিং অফিসাররের ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা আছে। যে কোনো বিষয়ে প্রিজাইডিং অফিসাররের যোগাযোগ করে আইনুনানুযায়ী ব্যবস্থা নিতে হবে। ভোট কেন্দ্র সঠিক ভাবে আছে কিনা। নিরাপত্তার কোনো ঝুঁকি আছে কিনা। কোথায় নিরাপত্তার ঝুঁকি। এসব বিষয়ে প্রিজাডিং অফিসারের সাথে যোগাযোগ করতে হবে। আমাদের পারস্পারিক যোগাযোগের মাধ্যমে আমরা যাতে নির্বাচনটা সঠিকভাবে করতে পারি।
যখন ভোট গ্রহণ শুরু হবে সবাই যাতে লাইনে দাঁড়াতে পারে, কেউ যেন পেশী শক্তি ব্যবহার করতে না পারে, কেউ যাতে ও মাস্তানি করতে না পারে এ বিষয়গুলো খেয়াল রাখতে হবে। ভোটার ও জনগণের সাথে সুন্দর ব্যবহার করতে হবে। আমাদের অনেক মা বোনেরা আছে, মা বোনদের সাথে সুন্দর ব্যবহার করতে হবে। অনেক ভোটার আসবে হয়তো চোখে দেখে না, পায়ে হাটতে পারেনা, যেভাবে সাহায্য করা যায় সাহায্য করবেন।
গাজীপুর সিটি নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ফরিদুল ইসলাম বলেন, জেলা প্রশাসনসহ সকল বাহিনী মিলে সিটি নির্বাচনকে সফল করার জন্য কাজ করছে। নির্বাচন কমিশনসহ সকলের একটাই চাওয়া সবাই যেন কমিশনকে সহেযোগীতা করে। সকলের সহযোগীতায় মাধ্যমে আমরা যেন গাজীপুরে মডেল নির্বাচন জাতিকে উপহার দিতে পারি। সিটি নির্বাচনে পাঁচ স্তরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন করে গাজীপুরকে নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেওয়া হয়েছে।
এজেন্ট বের করে দেওয়া হবে কিনা সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, আপনারা যেরকম আশঙ্কা করছেন সবগুলো বিষয়ে আমাদের নজরে আছে। এগুলো মাথায় রেখে আমরা সবকিছু পরিস্থিতি বিবেচনা করছি এবং সেই ভাবেই আমরা কাজ করছি। যদি এ ধরনের কোনো ঘটনা আমাদের নজরে আসে তাৎক্ষনিক আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ব্যবস্থা নিবে এবং ওই প্রার্থীর এজেন্টকে আমরা নিশ্চিত করবো সে কেন্দ্রে অবস্থান করার জন্য। আইনের মধ্যে থেকে যে সুযোগ সুবিধা পাওয়ার কথা আমরা তার জন্য সেগুলো নিশ্চিত করব। গাজীপুরের সকল ভোটরদেরকে উদাত্ত আহবান জানাব তারা যেন নির্ভিঘ্নে, নির্ভয়ে ভোট কেন্দ্রে এসে তা টছন্দ্রে প্রতীক এবং তার পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে পারে। তারা সুষ্ঠু সুন্দর পরিবেশে ভোট দিবে এবং তাদের ভোটাধিকার আমরা নিশ্চিত করার জন্য সর্বাত্নক কাজ করে যাচ্ছি।
গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ (জিএমপি’র) উপ-কমিশনার (এসবি) আবুল বাশার মো: আতিকুর রহমান জানান, ৫ হাজার পুলিশ সদস্য, প্রতি কেন্দ্রে ২ জন করে মোট ৯৬০ জন আনসার ব্যাটালিয়ান, প্রতি কেন্দ্রে ১০ জন করে ৪ হাজার ৮০০ গ্রাম পুলিশ, ৫৭ টি ওয়ার্ডে একজন নির্বাহী ম্যজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে আনসার সদস্য নিয়োজিত থাকবে।
এছাড়াও নগরীর ৫৭ টি ওয়ার্ডে ৫৭ জন ম্যাজিস্ট্রেট এবং ১৯ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, ২০ প্লাটুন বিজিবি, র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ান (র‌্যাব) সদস্য মোতায়েন থাকবে।
নিরাপত্তা ব্রিফিং অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন গাজীপুরের জেলা প্রশাসক আনিসুর রহমান, গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ’র (জিএমপি’র) অতিরিক্ত কমিশনার মোহাম্মদ ইলতুৎমিশ, অতিরিক্ত কমিশনার (প্রশাসন ও অর্থ) মো. জিয়াউল হক, বিজিব’র মেজর মো. ইকবাল, রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. ফরিদুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ (জিএমপি’র) গোয়েন্দা বিভাগের উপ-কমিশনার ইব্রাহিম হোসেন, গাজীপুর জেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা (ডিস্ট্রিক অ্যাডজুটেন্ট) আশরাফুল ইসলামসহ আইনশৃঙ্খলা বাহীনীর বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।