০৯:৪০ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সরকার ১৪২ তলা আইকনিক টাওয়ার নির্মাণের পরিকল্পনা করছে : কামাল

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, সরকার দেশে ১৪২ তলা বিশিষ্ট একটি আইকনিক টাওয়ার নির্মাণের পরিকল্পনা করেছে। আজ সংসদে ২০২৩-২৪ অর্থবছরের বাজেট পেশ করার সময় তিনি এ কথা বলেন।
অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘ভবিষ্যতে, পদ্মা সেতুর দুই প্রান্তে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট সিটি নির্মাণের পাশাপাশি ঢাকার পূর্বদিকে আধুনিক ও নান্দনিক স্থাপত্যশৈলী সম্বলিত ১৪২ তলা বিশিষ্ট আইকনিক টাওয়ার নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে।’ তিনি বলেন, জেলা পর্যায়ে কর্মরত বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানের জন্য সম্মিলিত অফিস ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়েছে।
উল্লেখ্য, ২০২৫ সালের মধ্যে সমস্ত সরকারি নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণ কাজে শতকরা ১০০ ভাগ পরিবেশবান্ধব উপকরণ ও প্রযুক্তি ব্যবহার বাধ্যতামূলক করে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। এই নির্দেশনা মেনে পরিবেশ বান্ধব ব্লক অটোক্লেভড এয়ারেটেড কংক্রিট প্যানেল এবং অন্যান্য উপকরণ তৈরি করা হচ্ছে। সরকারি আবাসন প্রসঙ্গে কামাল বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী সরকারি কর্মচারীদের আবাসন সুবিধা বিদ্যমান ৮ শতাংশ থেকে ৪০ শতাংশে উন্নীত করার লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সরকার বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। তিনি বলেন, সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য মোট ৬,৫০৮টি ফ্ল্যাট নির্মাণ করা হয়েছে এবং ৫,২১১টি ফ্ল্যাট নির্মাণের কাজ চলছে। অর্থমন্ত্রী বলেন, আরও ৮ হাজার ৮৩৫টি ফ্ল্যাট, প্রতিটি জেলায় সমন্বিত অফিস ভবন এবং ৬৪টি জেলায় সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য ডরমেটরি ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। তিনি বলেন, চলমান প্রকল্পগুলো শেষ হলে, সরকারি কর্মচারীদের আবাসন সুবিধা ১৫ শতাংশে পৌঁছাবে।

ট্যাগস :

সরকার ১৪২ তলা আইকনিক টাওয়ার নির্মাণের পরিকল্পনা করছে : কামাল

প্রকাশ : ১০:০৯:২০ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২ জুন ২০২৩

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, সরকার দেশে ১৪২ তলা বিশিষ্ট একটি আইকনিক টাওয়ার নির্মাণের পরিকল্পনা করেছে। আজ সংসদে ২০২৩-২৪ অর্থবছরের বাজেট পেশ করার সময় তিনি এ কথা বলেন।
অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘ভবিষ্যতে, পদ্মা সেতুর দুই প্রান্তে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট সিটি নির্মাণের পাশাপাশি ঢাকার পূর্বদিকে আধুনিক ও নান্দনিক স্থাপত্যশৈলী সম্বলিত ১৪২ তলা বিশিষ্ট আইকনিক টাওয়ার নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে।’ তিনি বলেন, জেলা পর্যায়ে কর্মরত বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানের জন্য সম্মিলিত অফিস ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়েছে।
উল্লেখ্য, ২০২৫ সালের মধ্যে সমস্ত সরকারি নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণ কাজে শতকরা ১০০ ভাগ পরিবেশবান্ধব উপকরণ ও প্রযুক্তি ব্যবহার বাধ্যতামূলক করে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। এই নির্দেশনা মেনে পরিবেশ বান্ধব ব্লক অটোক্লেভড এয়ারেটেড কংক্রিট প্যানেল এবং অন্যান্য উপকরণ তৈরি করা হচ্ছে। সরকারি আবাসন প্রসঙ্গে কামাল বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী সরকারি কর্মচারীদের আবাসন সুবিধা বিদ্যমান ৮ শতাংশ থেকে ৪০ শতাংশে উন্নীত করার লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সরকার বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। তিনি বলেন, সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য মোট ৬,৫০৮টি ফ্ল্যাট নির্মাণ করা হয়েছে এবং ৫,২১১টি ফ্ল্যাট নির্মাণের কাজ চলছে। অর্থমন্ত্রী বলেন, আরও ৮ হাজার ৮৩৫টি ফ্ল্যাট, প্রতিটি জেলায় সমন্বিত অফিস ভবন এবং ৬৪টি জেলায় সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য ডরমেটরি ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। তিনি বলেন, চলমান প্রকল্পগুলো শেষ হলে, সরকারি কর্মচারীদের আবাসন সুবিধা ১৫ শতাংশে পৌঁছাবে।