ঢাকা ০৪:৫৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

তুরস্কের পর সিরিয়ায় ত্রাণ পাঠাচ্ছে বাংলাদেশ

ভূমিকম্প পরবর্তী সাহায্যের জন্য সিরিয়ায় ত্রাণ পাঠাচ্ছে বাংলাদেশ। ত্রাণ সহায়তার জন্য বড় তাবু, ছোট তাবু, কম্বল, সোয়েটার, শুকনা খাবার ও ওষুধ পাঠানো হবে।
আজ শুক্রবার আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। মিশনে নেতৃত্ব দিচ্ছেন বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর গ্রুপ ক্যাপ্টেন জামিল উদ্দিন আহমেদ।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ভূমিকম্প পরবর্তী জরুরি ত্রাণ ও চিকিৎসা সামগ্রী বহনকারী বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর সি-১৩০জে উড়োজাহাজটি ঢাকা-জর্ডান-সিরিয়া রুটে বিশেষ ফ্লাইট পরিচালনা করবে। উড়োজাহাজটি বাংলাদেশ থেকে আজ শুক্রবার সিরিয়ার উদ্দেশ্যে যাত্রা করবে। সিরিয়ায় ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছানোর পর উড়োজাহাজটি বাংলাদেশে ফিরে আসবে।
বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, গত ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ তারিখে সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হানে এবং এতে প্রচুর জানমালের ক্ষয়ক্ষতি হয়। এতে সহস্রাধিক নিহত হওয়ার পাশাপাশি প্রচুর মানুষ ধ্বংসস্তুপের নিচে আটকা পড়েন। ভূমিকম্পের ফলে সৃষ্ট খাদ্য ও পানি সংকট, বাসস্থান সংকট ও জরুরি চিকিৎসা সেবার অভাবে উক্ত স্থানে সার্বিকভাবে মানবিক বিপর্যয় দেখা দিয়েছে।

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে যুদ্ধ বিরতি চুক্তিতে বাধা দেয়ার অভিযোগ

তুরস্কের পর সিরিয়ায় ত্রাণ পাঠাচ্ছে বাংলাদেশ

আপডেট সময় : ০৬:৫৯:১২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

ভূমিকম্প পরবর্তী সাহায্যের জন্য সিরিয়ায় ত্রাণ পাঠাচ্ছে বাংলাদেশ। ত্রাণ সহায়তার জন্য বড় তাবু, ছোট তাবু, কম্বল, সোয়েটার, শুকনা খাবার ও ওষুধ পাঠানো হবে।
আজ শুক্রবার আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। মিশনে নেতৃত্ব দিচ্ছেন বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর গ্রুপ ক্যাপ্টেন জামিল উদ্দিন আহমেদ।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ভূমিকম্প পরবর্তী জরুরি ত্রাণ ও চিকিৎসা সামগ্রী বহনকারী বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর সি-১৩০জে উড়োজাহাজটি ঢাকা-জর্ডান-সিরিয়া রুটে বিশেষ ফ্লাইট পরিচালনা করবে। উড়োজাহাজটি বাংলাদেশ থেকে আজ শুক্রবার সিরিয়ার উদ্দেশ্যে যাত্রা করবে। সিরিয়ায় ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছানোর পর উড়োজাহাজটি বাংলাদেশে ফিরে আসবে।
বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, গত ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ তারিখে সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হানে এবং এতে প্রচুর জানমালের ক্ষয়ক্ষতি হয়। এতে সহস্রাধিক নিহত হওয়ার পাশাপাশি প্রচুর মানুষ ধ্বংসস্তুপের নিচে আটকা পড়েন। ভূমিকম্পের ফলে সৃষ্ট খাদ্য ও পানি সংকট, বাসস্থান সংকট ও জরুরি চিকিৎসা সেবার অভাবে উক্ত স্থানে সার্বিকভাবে মানবিক বিপর্যয় দেখা দিয়েছে।