ঢাকা ০৩:১৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ধুনটে শহীদ মিনারে ফুল দেওয়া নিয়ে মহিলা আ.লীগ নেত্রীর নাক ফাটিয়ে দিলেন আরেক নেত্রী

বগুড়ার ধুনটে হোটেলে গিয়ে আওয়ামীলীগের দুই নারী নেত্রীর মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ফুল দেয়াকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলা পরিষদের সামনের একটি হোটেলের ভিতরে এই হামলার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় নারী নেত্রী লিপি আকতার ও কাওসার জাহান কেয়া আহত হয়।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ধুনট উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি পপি রানী সাহা ও সাধারণ সম্পাদক সুলতানা জাহানের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে দলীয় বিরোধ চলে আসছে। বিরোধের জের ধরেই মহিলা আওয়ামীলীগের দুইটি গ্রুপের সৃষ্টি দীর্ঘদিন ধরে আলাদা আলাদা কর্মসূচিও পালন করে আসছে।
ঘটনার দিন গত মঙ্গলবার উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে ২১শে ফেব্রুয়ারী উপলক্ষে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপিত হয়। দিবসটি উপলক্ষে সোমবার দিবাগত রাত ১২টা ১ মিনিটে মুজিব চত্বরে উপজেলার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মহিলা আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে পৃথক পৃথক ভাবে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। পুষ্পস্তবক
অর্পণকে কেন্দ্র করে উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পপি রানী সাহা ও সাধারণ সম্পাদক সুলতানা জাহানের নেতাকর্মীদের মধ্যে হতাহাতির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার জেরে মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলা পরিষদের সামনের একটি হোটেলে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
হামলায় আহত উপজেলার চৌকিবাড়ি ইউনিয়ন মহিলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহবায়ক লিপি আকতার বলেন, মঙ্গলবার দুপুরে হোটেলে ভাত খাওয়ার সময় শহীদ মিনারে ফুল দেয়াকে কেন্দ্র করে হাতাহাতির ঘটনায় তার উপর হামলা চালায়। হামলায় তার নাখ ও মুখ ফেটে যায়।
অপরদিকে ধুনট উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সুলতানা জাহান বলেন, শহীদ মিনারে পুষ্পমাল্য অর্পণকালে লিপি আকতার আমাদের ফুলের মালা ছিঁড়ে ফেলে। আর এই ঘটনা নিয়েই কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
এবিষয়ে ধুনট উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পপি রানী সাহা বলেন, শহীদ মিনারে ফুল দেওয়াকে কেন্দ্র করে নাজনীন নাহারের নেতৃত্বে তার লোকজন হোটেলের ভেতরেই লিপিকে মারধর করা হয়েছে।
আহতদের মধ্যে লিপি খাতুনকে ধুনট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং কাওসার জাহান কেয়াকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানা যায়।
এবিষয়ে ধুনট থানার অফিসার ইসচার্জ (ওসি) রবিউল ইসলাম বলেন, হামলার বিষয়ে এখনও কেউ অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আপলোডকারীর তথ্য

নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে যুদ্ধ বিরতি চুক্তিতে বাধা দেয়ার অভিযোগ

ধুনটে শহীদ মিনারে ফুল দেওয়া নিয়ে মহিলা আ.লীগ নেত্রীর নাক ফাটিয়ে দিলেন আরেক নেত্রী

আপডেট সময় : ০৬:৪০:৪৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

বগুড়ার ধুনটে হোটেলে গিয়ে আওয়ামীলীগের দুই নারী নেত্রীর মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ফুল দেয়াকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলা পরিষদের সামনের একটি হোটেলের ভিতরে এই হামলার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় নারী নেত্রী লিপি আকতার ও কাওসার জাহান কেয়া আহত হয়।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ধুনট উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি পপি রানী সাহা ও সাধারণ সম্পাদক সুলতানা জাহানের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে দলীয় বিরোধ চলে আসছে। বিরোধের জের ধরেই মহিলা আওয়ামীলীগের দুইটি গ্রুপের সৃষ্টি দীর্ঘদিন ধরে আলাদা আলাদা কর্মসূচিও পালন করে আসছে।
ঘটনার দিন গত মঙ্গলবার উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে ২১শে ফেব্রুয়ারী উপলক্ষে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপিত হয়। দিবসটি উপলক্ষে সোমবার দিবাগত রাত ১২টা ১ মিনিটে মুজিব চত্বরে উপজেলার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মহিলা আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে পৃথক পৃথক ভাবে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। পুষ্পস্তবক
অর্পণকে কেন্দ্র করে উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পপি রানী সাহা ও সাধারণ সম্পাদক সুলতানা জাহানের নেতাকর্মীদের মধ্যে হতাহাতির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার জেরে মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলা পরিষদের সামনের একটি হোটেলে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
হামলায় আহত উপজেলার চৌকিবাড়ি ইউনিয়ন মহিলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহবায়ক লিপি আকতার বলেন, মঙ্গলবার দুপুরে হোটেলে ভাত খাওয়ার সময় শহীদ মিনারে ফুল দেয়াকে কেন্দ্র করে হাতাহাতির ঘটনায় তার উপর হামলা চালায়। হামলায় তার নাখ ও মুখ ফেটে যায়।
অপরদিকে ধুনট উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সুলতানা জাহান বলেন, শহীদ মিনারে পুষ্পমাল্য অর্পণকালে লিপি আকতার আমাদের ফুলের মালা ছিঁড়ে ফেলে। আর এই ঘটনা নিয়েই কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
এবিষয়ে ধুনট উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পপি রানী সাহা বলেন, শহীদ মিনারে ফুল দেওয়াকে কেন্দ্র করে নাজনীন নাহারের নেতৃত্বে তার লোকজন হোটেলের ভেতরেই লিপিকে মারধর করা হয়েছে।
আহতদের মধ্যে লিপি খাতুনকে ধুনট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং কাওসার জাহান কেয়াকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানা যায়।
এবিষয়ে ধুনট থানার অফিসার ইসচার্জ (ওসি) রবিউল ইসলাম বলেন, হামলার বিষয়ে এখনও কেউ অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।