ঢাকা ০৭:১৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ধুনটে পূর্ব শত্রুতার জেরে প্রতিপক্ষের হামলায় বসতবাড়ি ভাংচুর,আহত ২

বগুড়ার ধুনটে জমি সংক্রান্ত জেরে প্রতিপক্ষের হামলায় বসতবাড়ী, আসবাবপত্র ভাংচুরসহ ২ জন আহত হয়েছে। সোমবার (৬ই মার্চ) সন্ধ্যা ৬ টায় উপজেলার ঈশ্বরঘাট গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আহতরা হলো ওই গ্রামের মৃত.সৈয়দ আলীর ছেলে ডা. আশরাফুল আলম লাল ও একই গ্রামের চাঁন মিয়ার ছেলে আলমগীর হোসেন। এঘটনায় সোমবার রাতেই ধুনট থানায় ৫ জন কে অভিযুক্ত করে লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়েছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ঈশ্বরঘাট গ্রামের আলমগীর হোসেনের দখলীয় বসতবাড়ি একই গ্রামের হেলাল উদ্দিন ও তার লোকজন জবর দখল করার জন্য পাঁয়তারা করে আসছিলো। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় ভাবে কয়েকবার সালিশী বৈঠক হলেও প্রতিপক্ষ হেলাল উদ্দিন সালিশ বৈঠকের সিদ্ধান্ত অমান্য করে। যার ফলে বিষয়টি আপোষ-নিষ্পত্তি না হয়ে চলমান থাকে। এরূপ অবস্থায় গত ৬ মার্চ সোমবার সন্ধ্যায় হেলাল উদ্দিন ও তার লোকজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে বে-আইনীভাবে আলমগীর হোসেনের বসতবাড়িতে প্রবেশ করে অশ্লীল ভাষায় আলমগীর হোসেন ও তার পরিবারের লোকজন কে গালিগালাজ করে। তখন আলমগীর হোসেন গালিগালাজের কারন জানতে চাইলে তাকে অতর্কিত ভাবে মারপিটে আহত করে। মারপিট থেকে বাঁচানোর জন্য আলমগীরের চাচা আশরাফুল ইসলাম লাল এগিয়ে আসলে তাকেও এলোপাথারিভাবে মারপিট করে। আত্মরক্ষার্থে আশরাফুল দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করলে প্রতিপক্ষের ইটের ঢিলে তলপেটে আঘাত প্রাপ্ত হয়। একপর্যায়ে প্রতিপক্ষরা আলমগীরের বসতবাড়ি, আসবাবপত্র ভাংচুর করতে থাকে। পরে আলমগীর হোসেন ৯৯৯ ফোন দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছার আগেই প্রতিপক্ষরা পালিয়ে যায়।

ধুনট থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মনিরুল ইসলাম জানান, এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্ত সাপেক্ষে আইনতগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে যুদ্ধ বিরতি চুক্তিতে বাধা দেয়ার অভিযোগ

ধুনটে পূর্ব শত্রুতার জেরে প্রতিপক্ষের হামলায় বসতবাড়ি ভাংচুর,আহত ২

আপডেট সময় : ০৬:৩৮:১৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৭ মার্চ ২০২৩

বগুড়ার ধুনটে জমি সংক্রান্ত জেরে প্রতিপক্ষের হামলায় বসতবাড়ী, আসবাবপত্র ভাংচুরসহ ২ জন আহত হয়েছে। সোমবার (৬ই মার্চ) সন্ধ্যা ৬ টায় উপজেলার ঈশ্বরঘাট গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আহতরা হলো ওই গ্রামের মৃত.সৈয়দ আলীর ছেলে ডা. আশরাফুল আলম লাল ও একই গ্রামের চাঁন মিয়ার ছেলে আলমগীর হোসেন। এঘটনায় সোমবার রাতেই ধুনট থানায় ৫ জন কে অভিযুক্ত করে লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়েছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ঈশ্বরঘাট গ্রামের আলমগীর হোসেনের দখলীয় বসতবাড়ি একই গ্রামের হেলাল উদ্দিন ও তার লোকজন জবর দখল করার জন্য পাঁয়তারা করে আসছিলো। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় ভাবে কয়েকবার সালিশী বৈঠক হলেও প্রতিপক্ষ হেলাল উদ্দিন সালিশ বৈঠকের সিদ্ধান্ত অমান্য করে। যার ফলে বিষয়টি আপোষ-নিষ্পত্তি না হয়ে চলমান থাকে। এরূপ অবস্থায় গত ৬ মার্চ সোমবার সন্ধ্যায় হেলাল উদ্দিন ও তার লোকজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে বে-আইনীভাবে আলমগীর হোসেনের বসতবাড়িতে প্রবেশ করে অশ্লীল ভাষায় আলমগীর হোসেন ও তার পরিবারের লোকজন কে গালিগালাজ করে। তখন আলমগীর হোসেন গালিগালাজের কারন জানতে চাইলে তাকে অতর্কিত ভাবে মারপিটে আহত করে। মারপিট থেকে বাঁচানোর জন্য আলমগীরের চাচা আশরাফুল ইসলাম লাল এগিয়ে আসলে তাকেও এলোপাথারিভাবে মারপিট করে। আত্মরক্ষার্থে আশরাফুল দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করলে প্রতিপক্ষের ইটের ঢিলে তলপেটে আঘাত প্রাপ্ত হয়। একপর্যায়ে প্রতিপক্ষরা আলমগীরের বসতবাড়ি, আসবাবপত্র ভাংচুর করতে থাকে। পরে আলমগীর হোসেন ৯৯৯ ফোন দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছার আগেই প্রতিপক্ষরা পালিয়ে যায়।

ধুনট থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মনিরুল ইসলাম জানান, এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্ত সাপেক্ষে আইনতগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।