ঢাকা ০২:৫৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ধুনটে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ত্রাণ বিতরণ না করে পচিয়ে ফেরত দিলো ইউএনও

বগুড়ার ধুনটে সদ্য বদলী হওয়া নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সঞ্জয় কুমার মহন্ত এর সরকারী বাস ভবন থেকে করোনা কালীন সময় ২০২১ সালের ‘প্রধানমন্ত্রীর উপহারের’ ২২১ বস্তা খাবার অযোগ্য ত্রান সামগ্রী উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল হাই খোকনের হেফাজতে রেখেছেন।

উপজেলা পরিষদের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা প্রধানমন্ত্রীর ত্রান ভান্ডারের সরকারী ত্রান সামগ্রী অসহায় মানুষের মধ্যে বিতরণ না করে বাসায় রেখে নষ্ট করায় বিষয়টি সর্ব সাধারনকে বিশেষ ভাবে ভাবিয়ে তুলেছে।
ইউএনও সঞ্জয় কুমার মহন্তকে গত ৭ই মার্চ ধুনট উপজেলা থেকে রাজশাহীর গোদাগাড়ি উপজেলায় বদলী করা হয়। বৃহস্পতিবার (৬ই এপ্রিল) ধুনট উপজেলায় তার শেষ কর্ম দিবস ছিল। ওইদিন ৩টায় দিকে উপজেলা পরিষদের সরকারী বাস ভবন থেকে ২২১ বস্তা নষ্ট হয়ে যাওয়া খাবার অযোগ্য ত্রান সামগ্রীর বস্তা উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল হাই খোকনের সরকারী বাস ভবনে রাখেন। বিষয়টি জানাজানি হলে উপজেলা চেয়ারম্যানের বাসভবনে সংবাদকর্মী ও রাজনৈতিক নেতা কর্মীদের ভীড় শুরু হয়।
সরেজমিনে দেখা গেছে, চাল,ডাল,লবন,তেল,চিড়া, লুডুলস, চিনি, হলুদ,মরিচ,ধনিয়া,গুড়া মসলার সাড়ে ১৫ কেজি ওজনের বস্ত্রা গায়ে লেখা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার,ত্রান সামগ্রী হিসাবে বিনা মূল্যে বিতরনের জন্য। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রনালয় ২০২১-২০২২ অর্থ বছর ও ০৭.০৭.২০২১ তারিখ। প্রায় দুই বছরের অধিক সময়ের এই ত্রান সামগ্রী গুলো মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে খাবার অযোগ্য হয়ে পড়েছে।
উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল হাই খোকন বলেন, ইউএনও সঞ্জয় কুমার মহন্ত শেষ কর্মদিবসে ২২১ বস্তা ত্রান সামগ্রী লেবার শ্রমিক দিয়ে তার সরকারী বাসায় রেখেছেন এবং ২০২২ সালের ২৫ জুলাই তারিখের তৎকালিন জেলা প্রশাসক জিয়াউল হক স্বাক্ষরিত একটি বরাদ্দ পত্র দিয়েছেন। রেখে দেওয়া ত্রান সামগ্রী গুলো অনেকটাই খাবার অযোগ্য।
ইউএনও সঞ্জয় কুমার মহন্ত বলেন, ত্রান সামগ্রী গুলো গত তিন মাস আগে বরাদ্দ পেয়েছি ও সেগুলো কিছু বিতরন করা হয়েছে । আমার বদলী জনিত কারনে ত্রান সামগ্রী গুলো উপজেলা চেয়ারম্যানের কাছে দেওয়া হয়েছে। এর চেয়ে বেশী কিছু তিনি বলতে রাজি হননি।
ধুনট উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান টি আই এম নুরুন্নবী তারিক বলেন, ইউএনও সঞ্জয় কুমার মহন্ত সরকারী ত্রান সামগ্রী অসৎ উদ্দেশ্যে বিতরন না করে নষ্ট করেছেন। বিষয়টি তদন্ত পূর্বক ইউএনও শাস্তির দাবী করেছেন।

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে যুদ্ধ বিরতি চুক্তিতে বাধা দেয়ার অভিযোগ

ধুনটে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ত্রাণ বিতরণ না করে পচিয়ে ফেরত দিলো ইউএনও

আপডেট সময় : ০৭:৪৯:৪১ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৭ এপ্রিল ২০২৩

বগুড়ার ধুনটে সদ্য বদলী হওয়া নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সঞ্জয় কুমার মহন্ত এর সরকারী বাস ভবন থেকে করোনা কালীন সময় ২০২১ সালের ‘প্রধানমন্ত্রীর উপহারের’ ২২১ বস্তা খাবার অযোগ্য ত্রান সামগ্রী উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল হাই খোকনের হেফাজতে রেখেছেন।

উপজেলা পরিষদের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা প্রধানমন্ত্রীর ত্রান ভান্ডারের সরকারী ত্রান সামগ্রী অসহায় মানুষের মধ্যে বিতরণ না করে বাসায় রেখে নষ্ট করায় বিষয়টি সর্ব সাধারনকে বিশেষ ভাবে ভাবিয়ে তুলেছে।
ইউএনও সঞ্জয় কুমার মহন্তকে গত ৭ই মার্চ ধুনট উপজেলা থেকে রাজশাহীর গোদাগাড়ি উপজেলায় বদলী করা হয়। বৃহস্পতিবার (৬ই এপ্রিল) ধুনট উপজেলায় তার শেষ কর্ম দিবস ছিল। ওইদিন ৩টায় দিকে উপজেলা পরিষদের সরকারী বাস ভবন থেকে ২২১ বস্তা নষ্ট হয়ে যাওয়া খাবার অযোগ্য ত্রান সামগ্রীর বস্তা উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল হাই খোকনের সরকারী বাস ভবনে রাখেন। বিষয়টি জানাজানি হলে উপজেলা চেয়ারম্যানের বাসভবনে সংবাদকর্মী ও রাজনৈতিক নেতা কর্মীদের ভীড় শুরু হয়।
সরেজমিনে দেখা গেছে, চাল,ডাল,লবন,তেল,চিড়া, লুডুলস, চিনি, হলুদ,মরিচ,ধনিয়া,গুড়া মসলার সাড়ে ১৫ কেজি ওজনের বস্ত্রা গায়ে লেখা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার,ত্রান সামগ্রী হিসাবে বিনা মূল্যে বিতরনের জন্য। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রনালয় ২০২১-২০২২ অর্থ বছর ও ০৭.০৭.২০২১ তারিখ। প্রায় দুই বছরের অধিক সময়ের এই ত্রান সামগ্রী গুলো মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে খাবার অযোগ্য হয়ে পড়েছে।
উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল হাই খোকন বলেন, ইউএনও সঞ্জয় কুমার মহন্ত শেষ কর্মদিবসে ২২১ বস্তা ত্রান সামগ্রী লেবার শ্রমিক দিয়ে তার সরকারী বাসায় রেখেছেন এবং ২০২২ সালের ২৫ জুলাই তারিখের তৎকালিন জেলা প্রশাসক জিয়াউল হক স্বাক্ষরিত একটি বরাদ্দ পত্র দিয়েছেন। রেখে দেওয়া ত্রান সামগ্রী গুলো অনেকটাই খাবার অযোগ্য।
ইউএনও সঞ্জয় কুমার মহন্ত বলেন, ত্রান সামগ্রী গুলো গত তিন মাস আগে বরাদ্দ পেয়েছি ও সেগুলো কিছু বিতরন করা হয়েছে । আমার বদলী জনিত কারনে ত্রান সামগ্রী গুলো উপজেলা চেয়ারম্যানের কাছে দেওয়া হয়েছে। এর চেয়ে বেশী কিছু তিনি বলতে রাজি হননি।
ধুনট উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান টি আই এম নুরুন্নবী তারিক বলেন, ইউএনও সঞ্জয় কুমার মহন্ত সরকারী ত্রান সামগ্রী অসৎ উদ্দেশ্যে বিতরন না করে নষ্ট করেছেন। বিষয়টি তদন্ত পূর্বক ইউএনও শাস্তির দাবী করেছেন।