ঢাকা ০৬:১২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

২৪ বছর পর লজ্জার বিদায় বার্সার; আশার আলো দেখছেন জাভি

ইউরোপের দ্বিতীয় শীর্ষ টুর্নামেন্ট ইউরোপা লিগের রাউন্ড অব সিক্সটিনে উঠতে ব্যর্থ হয়েছে বার্সেলোনা। প্লে-অফে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের কাছে ২-১ গোলের ব্যবধানে হেরে স্বপ্ন ভঙ্গ হয় কাতালানদের। সবশেষ ১৯৯৮-৯৯ মৌসুমে এমন লজ্জাজনক অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে গিয়েছিল বার্সা। তবুও বার্সার এই পারফরমেন্সে আশার আলো দেখছেন দলটির কোচ জাভি হার্নান্দেজ। ভেঙে না পড়ে আগামী মৌসুমে ঘুরে দাঁড়ানোর কথা জানান তিনি। খবর ইএসপিএন’র।
চলতি মৌসুম শুরুর আগেও বিভিন্ন ইস্যুতে খবরের শিরোনাম হয়েছিল বার্সেলোনা। আর্থিক সঙ্কটের ভেতরও দলবদলের বাজারে সাহসী পদক্ষেপ নিয়েছিলেন বার্সা সভাপতি হুয়ান লাপোর্তা। সম্পদ বিক্রি ও একাধিক আর্থিক লিভার কার্যকরের মাধ্যমে নতুন ফুটবলারদের নিবন্ধন করিয়েছিলেন ক্লাবে। শেষ পর্যন্ত অবশ্য হতাশাই সঙ্গী হয়েছে তার। ১৯৯৮ সালের পর এই প্রথম এমন অভিজ্ঞতার তেঁতো স্বাদ পেলো কাতালানরা। তবে আগামী মৌসুমের জন্য আশাবাদী দলের কোচ জাভি হার্নান্দেজ।
বার্সেলোনার কোচ জাভি হার্নান্দেজ বলেন, আশা করছি আগামী মৌসুমে ভালো কিছু হবে। বেশ কিছু প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ম্যাচ খেলেছি আমরা। এখানেই যে আমাদের যাত্রা শেষ হয়ে গেছে তা মানতে নারাজ আমি। আমরা অবশ্যই উন্নতি করছি। তবে তা যথেষ্ট ছিল না। নিজেদের ভুলগুলো খতিয়ে দেখবো।
গত অক্টোবরের পর এই প্রথম হারের মুখ দেখলো বার্সেলোনা। টানা ১৮ ম্যাচ অপরাজিত থাকার যাত্রায় ঘটলো ছন্দপতন। যেটার মাশুল গুনতে হয়েছে ২৪ বছর পর শেষ ১৬’র লড়াইয়ে না উঠতে পারার লজ্জা। তবে হারের কারণ হিসেবে জাভি দেখছেন গাভি ও পেদ্রির অনুপস্থিতিকে। তিনি বলেন, গাভি ও পেদ্রি দলের গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়। যেকোনো মুহূর্তে ম্যাচের ভাগ্য বদলে দিতে পারে তারা। ওরা খেললে আমাদের এমন সমস্যায় পড়তে হতো না।
শেষ দুই বছর চ্যাম্পিয়নস লিগের গ্রুপ পর্বই পাড়ি দিতে পারেনি এই টুর্নামেন্টে পাঁচবারের চ্যাম্পিয়নরা। অথচ ২০২১ সালের আগপর্যন্ত টানা ১৪ মৌসুমে অন্তত কোয়ার্টার ফাইনালে খেলেছিল বার্সেলোনা।

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে যুদ্ধ বিরতি চুক্তিতে বাধা দেয়ার অভিযোগ

২৪ বছর পর লজ্জার বিদায় বার্সার; আশার আলো দেখছেন জাভি

আপডেট সময় : ০৩:১২:০৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

ইউরোপের দ্বিতীয় শীর্ষ টুর্নামেন্ট ইউরোপা লিগের রাউন্ড অব সিক্সটিনে উঠতে ব্যর্থ হয়েছে বার্সেলোনা। প্লে-অফে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের কাছে ২-১ গোলের ব্যবধানে হেরে স্বপ্ন ভঙ্গ হয় কাতালানদের। সবশেষ ১৯৯৮-৯৯ মৌসুমে এমন লজ্জাজনক অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে গিয়েছিল বার্সা। তবুও বার্সার এই পারফরমেন্সে আশার আলো দেখছেন দলটির কোচ জাভি হার্নান্দেজ। ভেঙে না পড়ে আগামী মৌসুমে ঘুরে দাঁড়ানোর কথা জানান তিনি। খবর ইএসপিএন’র।
চলতি মৌসুম শুরুর আগেও বিভিন্ন ইস্যুতে খবরের শিরোনাম হয়েছিল বার্সেলোনা। আর্থিক সঙ্কটের ভেতরও দলবদলের বাজারে সাহসী পদক্ষেপ নিয়েছিলেন বার্সা সভাপতি হুয়ান লাপোর্তা। সম্পদ বিক্রি ও একাধিক আর্থিক লিভার কার্যকরের মাধ্যমে নতুন ফুটবলারদের নিবন্ধন করিয়েছিলেন ক্লাবে। শেষ পর্যন্ত অবশ্য হতাশাই সঙ্গী হয়েছে তার। ১৯৯৮ সালের পর এই প্রথম এমন অভিজ্ঞতার তেঁতো স্বাদ পেলো কাতালানরা। তবে আগামী মৌসুমের জন্য আশাবাদী দলের কোচ জাভি হার্নান্দেজ।
বার্সেলোনার কোচ জাভি হার্নান্দেজ বলেন, আশা করছি আগামী মৌসুমে ভালো কিছু হবে। বেশ কিছু প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ম্যাচ খেলেছি আমরা। এখানেই যে আমাদের যাত্রা শেষ হয়ে গেছে তা মানতে নারাজ আমি। আমরা অবশ্যই উন্নতি করছি। তবে তা যথেষ্ট ছিল না। নিজেদের ভুলগুলো খতিয়ে দেখবো।
গত অক্টোবরের পর এই প্রথম হারের মুখ দেখলো বার্সেলোনা। টানা ১৮ ম্যাচ অপরাজিত থাকার যাত্রায় ঘটলো ছন্দপতন। যেটার মাশুল গুনতে হয়েছে ২৪ বছর পর শেষ ১৬’র লড়াইয়ে না উঠতে পারার লজ্জা। তবে হারের কারণ হিসেবে জাভি দেখছেন গাভি ও পেদ্রির অনুপস্থিতিকে। তিনি বলেন, গাভি ও পেদ্রি দলের গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়। যেকোনো মুহূর্তে ম্যাচের ভাগ্য বদলে দিতে পারে তারা। ওরা খেললে আমাদের এমন সমস্যায় পড়তে হতো না।
শেষ দুই বছর চ্যাম্পিয়নস লিগের গ্রুপ পর্বই পাড়ি দিতে পারেনি এই টুর্নামেন্টে পাঁচবারের চ্যাম্পিয়নরা। অথচ ২০২১ সালের আগপর্যন্ত টানা ১৪ মৌসুমে অন্তত কোয়ার্টার ফাইনালে খেলেছিল বার্সেলোনা।